You are currently viewing মিমি চক্রবর্তীর জীবনী ও লাইফস্টাইল
মিমি চক্রবর্তী

মিমি চক্রবর্তীর জীবনী ও লাইফস্টাইল

কলকাতা ফিল্ম ইন্ডষ্ট্রিতে যে কজন অভিনেত্রী দর্শকদের ভালবাসা নিয়ে সফলভাবে অভিনয় করে যাচ্ছে তাদের মধ্যে অন্যতম মিমি চক্রবর্তী। আকর্ষণীয় এই মেধাবী অভিনেত্রী ইতোমধ্যে তার অভিনয় ও গ্লামার দিয়ে কোটি ভক্তের হৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছে। তিনি তার সমসাময়িক সকল সুপারস্টার অভিনেতার সাথে অভিনয় করেছেন যার প্রত্যেকটি সিনেমা ছিল সুপারহিট। আজকে আমরা সিনেমা পর্দা কাপানো নায়িকা মিমি চক্রবর্তী সম্পর্কে বিস্তারিত জানব।

এক নজরে মিমি চক্রবর্তী

মূলনামঃ মিমি চক্রবর্তী

ডাকনামঃ মিমি

জন্ম সালঃ ১৯৮৯

জন্ম তারিখঃ ১১ ফেব্রুয়ারি

জন্মস্থানঃ জলপাইগুড়ি, পশ্চিম বাংলা, ভারত

শৈশব কাটেঃ ডিউমালি, অরুনাচল প্রদেশ, ভারত

বর্তমান বসবাসঃ কলকাতা, ভারত

পেশাঃ রাজনীতিবিদ, মডেল ও অভিনেত্রী

রাজনীতিক দলঃ তূর্ণমূল কংগ্রেস

সেক্সঃ নারী

ভাষাঃ বাংলা, হিন্দি

ধর্মঃ সনাতন

জাতীয়তাঃ ভারতীয়

ধর্ম উপাধিঃ চক্রবর্তী

শিক্ষগত যোগ্যতাঃ গেজুয়েট

বৈবাহিক অবস্থাঃ অবিবাহিত

বয়ফেন্ডঃ জানা নেই

পিতাঃ অরুণ চক্রবর্তী

মাতাঃ তাপসি চক্রবর্তী

উচ্চতাঃ ৫ ফুট ৬ ইঞ্চি

শরীরের গঠনঃ ৩২-৩৩-৩২

হিপঃ ৩৪

স্কিন কালারঃ ফর্শা

চুলের কালারঃ কাল

চোখের কালারঃ ডার্ক ব্রাউন

প্রথম সিনেমাঃ বাপি বাড়ি যা

সিনেমায় অভিষেকঃ ২০১২

মিডিয়ায় অভিষেকঃ ২০১০

অভিষেক প্রোগ্রামঃ গানের ওপারে

গানে অভিষেকঃ ২০১৯

ভাল বন্ধুঃ নায়িকা নূসরাত জাহান

প্রিয় অভিনেতা অভিনেত্রীঃ শাহরুখ ও রানী মূখাজী

প্রিয় ডেস্টিনেশনঃ নিউইয়ংক, কলকাতা

প্রিয় গায়কঃ লতা মঙ্গেশকর

প্রিয় খেলাঃ ক্রিকেট

প্রিয় খেলোয়ারঃ সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়

শখঃ সাইক্লেনিং, ফটো শুটিং

প্রিয় পারফিউমঃ আরমানি

প্রিয় কালারঃ লাল, হলুদ

প্রিয় রেস্তোরাঃ টাও

মিমি চক্রবর্তীর প্রাথমিক জীবন

ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্র ও টেলিভিশনের মিষ্টি অভিনেত্রী মিমি চক্রবর্তী জন্মগ্রহণ করেন ১৯৮৯ সালের ১১ ফেব্রুয়ারী ভারতের পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়িতে। তিনি পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়িতে জন্ম গ্রহণ করলে তার শৈশব কেটেছে অন্য একটি প্রদেশে। ভারতের অরুনাচল প্রদেশের তিরাপ জেলার দেওমালি শহরে মিমির শৈশবের অনেকটা সময় কেটেছে। মিমির সৃতিতে অরুনাচল প্রদেশ চীর স্মরণীয় হয়ে থাকবে। তার আদি বাড়ি হচ্ছে জলপাইগুড়িতে। পরবর্তিতে তিনি তার আদি বাড়ি জলপাইগুড়িতে ফিরে আসেন।

আরো পড়ুনঃ নায়িকা অপু বিশ্বাসের জীবনী

মিমি চক্রবর্তীর পড়াশোনা

মিমি চক্রবর্তীর পড়াশোনায় খুবই ভাল ছাত্রী ছিলেন। তিনি তার স্কুল জীবনে জলপাইগুড়ি হলি চাইল্ড স্কুলে পড়েছেন। তিনি জলপাইগুড়ি হলি চাইল্ড স্কুল ছাড়া ও বিন্নাগুড়ির সেন্ট জেমস স্কুলে পড়াশোনা করেছেন। তারপর তারা জলপাইগুড়ি ছেড়ে কলকাতা শহরে চলে আসেন। কলকাতা থেকে মিমি ইংরেজিতে ২০০৬ সালে স্নাতক সম্পর্ণ করেন। পরবর্তিতে তিনি পড়াশোনার পাটচুকিয়ে অভিনয়ে নাম লেখান।

আরো পড়ুনঃ নুসরাত ফারিয়ার জীবনী 

মিমির কর্মজীবন

কর্মজীবনের শুরুতে মিমি চক্রবর্তী প্রথমে সবার নজরে আসেন বিখ্যাত চলচ্চিত্রকার ঋতুপর্ণ ঘোষের গানের ওপারে ধারাবাহিকের ‘পুপে’ চরিত্রের মাধ্যমে। ক্যারিয়ারের প্রথমে মিমি মডেলিং দিয়ে তার মিডিয়ার ক্যারিয়ার শুরু করেন। তিনি পুরুদমে ফিল্মে কাজ শুরু করেন বাপি বাড়ি যা নামক চলচ্চিত্রের মাধ্যমে ২০১২ সালে। তারপর থেকে তিনি একের পর এক সুপারহিট সিনেমা উপহার দেয় দর্শকদের।

মিমি চক্রবর্তীর সিনেমার ক্যারিয়ার

আইডিয়াস ক্রিয়েশনস্‌ – ও শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমার বাপি বাড়ি যা সিনেমায় দোলা চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে মিমি চক্রবর্তীর ফিল্মে যাত্রা শুরু হয়। মিমি তার ফিল্ম ক্যারিয়ারে জিৎ, দেব, সোহম, হিরণ, অংকুশ, যশ, যীশু, আবির সহ আরো অনেক অভিনেতার বিপরীতে কাজ করেছ। তার সৌভাগ্য হয়েছে অনেক গুণী পরিচালকদের সাথে কাজ করার। 

তিনি অভিজিত গুহো, রাজ চক্রবর্তী, রবি কিনাগী, বিরসা দাশগুপ্ত, রাজা চন্দ, পথিকৃৎ বসু, বাবা যাদব, শাগুফতা রফিক, আনশুমান প্রত্যুস এর মত গুণী নির্মাতাদের সাথে কাজ করেছেন। তাছাড়া তিনি কলকাতার বড় বড় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠন আইডিয়াস ক্রিয়েশনস্‌, শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস, সুরিন্দর ফিল্মস, গ্রীনটাচ এন্টারটেইনমেন্ট,যারেক এন্টারটেইনমেন্ট এর ছবিতে কাজ করেছেন।

মিমি চক্রবর্তীর উল্লেখযোগ্য সিনেমাঃ

১। আইডিয়াস ক্রিয়েশনস্‌ ও শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত “বাপি বাড়ি যা” সিনেমা মুক্তিপায় ৭ ডিসেম্বর ২০১২ সালে যেটি নির্মাণ করেন অভিজিত গুহো
২। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “বোঝেনা সে বোঝেনা” মুক্তিপায় ২৮শে ডিসেম্বর ২০১২ সালে যেটি নির্মাণ করেন রাজ চক্রবর্তী
৩। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “প্রলয়” মুক্তিপায় ৯ ই আগস্ট ২০১৩ সালে যেটি নির্মাণ করেন রাজ চক্রবর্তী
৪। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “বাঙালী বাবু ইংলিশ মেম” মুক্তিপায় ৩১ শে জানুয়ারি ২০১৪ সালে যেটি নির্মাণ করেন রবি কিনাগী
৫। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “গল্প হলেও সত্যি” মুক্তিপায় ৪ ঠা জুলাই ২০১৪ সালে যেটি নির্মাণ করেন বিরসা দাশগুপ্ত

৬। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “যোদ্ধা-দ্য ওয়ারিয়র” মুক্তিপায় ১৯ শে অক্টোবর ২০১৪ সালে যেটি নির্মাণ করেন রাজ চক্রবর্তী
৭। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস ও সুরিন্দর ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “খাদ” মুক্তিপায় ৭ ই নভেম্বর ২০১৪ সালে যেটি নির্মাণ করেন কৌশিক গঙ্গোপাধ্যায়
৮। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস ও সুরিন্দর ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা ” জামাই ৪২০” মুক্তিপায় ২২ এ মে ২০১৫ সালে যেটি নির্মাণ করেন রবি কিনাগী
৯। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “শুধু তোমারই জন্য” মুক্তিপায় ১৬ ই সেপ্টেম্বর ২০১৫ সালে যেটি নির্মাণ করেন বিরসা দাশগুপ্ত
১০। গ্রীনটাচ এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত সিনেমা “কাটমুণ্ডু” মুক্তিপায় ১৬ ই অক্টোবর ২০১৫ সালে যেটি নির্মাণ করেন রাজ চক্রবর্তী

১১। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “কি করে তোকে বলবো” মুক্তিপায় ১২ ই ফেব্রুয়ারি ২০১৬ সালে যেটি নির্মাণ করেন রবি কিনাগী
১২। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস ও সুরিন্দর ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “কেলোর কীর্তি” মুক্তিপায় ৬ ই জুলাই ২০১৬ সালে যেটি নির্মাণ করেন রাজা চন্দ
১৩। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “গ্যাংস্টার” মুক্তিপায় ৭ ই অক্টোবর ২০১৬ সালে যেটি নির্মাণ করেন বিরসা দাশগুপ্ত
১৪। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “টোটাল দাদাগিরি” মুক্তিপায় ১৯ শে জানুয়ারী ২০১৮ সালে যেটি নির্মাণ করেন পথিকৃৎ বসু
১৫। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “ভিলেন” মুক্তিপায় ১২ অক্টোবর ২০১৮ সালে যেটি নির্মাণ করেন বাবা যাদব

১৬। শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস প্রযোজিত সিনেমা “মন জানে না” মুক্তিপায় ২১ মার্চ ২০১৯ সালে যেটি নির্মাণ করেন শাগুফতা রফিক
১৭। যারেক এন্টারটেইনমেন্ট প্রযোজিত সিনেমা “এসওএস কলকাতা” মুক্তিপায় ২১ অক্টোবর ২০২০ সালে যেটি নির্মাণ করেন আনশুমান প্রত্যুস

আরো পড়ুনঃ  নায়িকা মাহিয়া মাহির জীবনী

মিমি চক্রবর্তীর পুরস্কার

মিমি চক্রবর্তীর তার অভিনয় গুণে মুগ্ধ করেছে হাজারো দর্শক। তার পুরস্কার হিসেবে পেয়েছে ভারতের জনপ্রিয় পুরস্কার “টেলিসম্মান অ্যাওয়ার্ড, ২০১১-টেলিকণ্যা”। তারপর তিনি একই বছর কলকাতার বিগ বাংলা রাইজিং স্টার অ্যাওয়ার্ড পুরস্কার হিসেবে ২০১১-রাইজিং স্টার (নারী) হিসেবে নির্বাচিত হয়। এই দুটি বড় পুরস্কার তার ক্যারিয়ার বড় করতে সাহায্য করেছে। পুরস্কারের বাহিরে তিনি লাক্ষ ভক্তের ভালবাসা ও খ্যাতি পেয়েছে তা পুরস্কারের চেয়ে ও বেশি।

মিমি চক্রবর্তীর সোসালমিডিয়া

ফেসবুক প্রোফাইল

টুইটার প্রোফাইল

ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইল