You are currently viewing মেহজাবিন চৌধুরীর জীবনী ও লাইফস্টাইল
মেহজাবিন চৌধুরীর

মেহজাবিন চৌধুরীর জীবনী ও লাইফস্টাইল

আজকে আমরা কথা বলব বর্তমান বাংলাদেশের ছোট পর্দার জনপ্রিয় নায়িকা ও মডেল মেহজাবিন চৌধুরী সম্পর্কে। মেহজাবিন চৌধুরী ইতোমধ্যে তার রূপ ও অভিনয় দিয়ে কোটি ভক্তের হৃদয় জয় করে ফেলেছে। বিশেষ করে তরুণদের ক্রাশ হয়ে উঠেছেন তিনি। তরুণদের পাশাপাশি তিনি অভিনয় দক্ষতা দিয়ে সিনিয়দের মাঝেও গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছেন। মেহজাবিন চৌধুরীর মিডিয়ার যাত্রা শুরু হয়েছিল লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রোগ্রামের মাধ্যমে। লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার ২০০৯ সালের প্রোগ্রামে বিজয়ী হওয়ার পর মিডিয়াতে আসেন। তিনি মূলত বাংলাদেশ টিলিভিশন নাটকে কাজ করে থাকেন। পাশাপাশা বিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপনে মডেলিং করে থাকে। তিনি খুবই রুচিশীল মানুষ তাই বেচে বেচে কাজ করেন।

এক নজরে মেহজাবিন চৌধুরী

মূলনামঃ মেহজাবিন চৌধুরী

ডাকনামঃ জেনিফার, জেনি

জন্মঃ ১৯ এপ্রিল ১৯৯১

জন্মস্থানঃ চট্টগ্রামে

শৈশবে কেটেছেঃ সংযুক্ত আরব আমিরাতে

ভাষাঃ বাংলা

উচ্চতাঃ 5 ফুট 3 ইঞ্চি

রাশিঃ মেষ

ধর্মঃ ইসলাম

পেশাঃ মডেল, অভিনেত্রী

জাতীয়তাঃ বাংলাদেশী

লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার বিজয়ীঃ ২০০৯ সালে

প্রথম নাটকঃ তুমি থাকো সিন্ধুপারে

প্রথম সহঅভিনেতাঃ মাহফুজ আহমেদ

প্রথম পরচালকঃ ইফতেখার আহমেদ ফাহমি

প্রিয় গায়কঃ চার্লি পুথ, রিহানা

প্রিয় অভিনেতাঃ আফরান নিশো

প্রিয় সহশিল্পীঃআফরান নিশো,অপূর্ব

প্রিয় পরিচালকঃ মিজানুর রহমান আরিয়ান, আদনান আল রাজীব

প্রিয় বলিউড অভিনেতাঃ অক্ষয় কুমার, শাহরুখ খান

প্রিয় WWE সুপারস্টারঃ জন সিনা, রক

সুপারহিট নাটকঃ বড় ছেলে, বুকের বা পাশে

শিক্ষাগত যোগ্যতাঃ ফ্যাশন ডিজাইনিংয়ে ডিপ্লোমা

ডিপ্লোমা করেনঃ শান্ত-মারিয়াম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে

বৈবাহিক অবস্থাঃ অবিবাহিত

বয়ফেন্ডঃ আদনান আল রাজীব ( পরিচালক )

মেহজাবিন চৌধুরীর প্রাথমিক জীবন

বাংলাদেশের হার্টথ্রব মডেল ও নায়িকা মেহজাবিন চৌধুরী জন্মগ্রহণ করেন ১৯ এপ্রিল ১৯৯১ সালে চট্টগ্রামে। মেহজাবিন চৌধুরীর জন্ম চট্টগ্রামে হলে ও বেড়ে ওঠেছেন সংযুক্ত আরব আমিরাতে। বাবার চাকরীর সুবাদে তাকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে থাকতে হয় দীর্ঘদিন। তার পড়াশোনা শুরু হয় সংযুক্ত আরব আমিরাতে। সংযুক্ত আরব আমিরাতে থেকে দেশে ফেরার পর তিনি ফ্যাশন ডিজাইনিং এর উপর ডিপ্লমা করেন শান্ত-মারিয়াম ইউনিভার্সিটি থেকে। ছাত্রী হিসেবে মেহজাবিন চৌধুরী ছিলেন খুবই মেধাবী। তিনি ইংরেজীতে অনর্গল কথা বলতে পারেন।

আরো পড়ুনঃ আরেফিন শুভর জীবনী

মেহজাবিন চৌধুরীর পরিবার

বাবা মহিউদ্দিন চৌধুরী ও মাতা গজলা চৌধুরীর পাচ সন্তানের মধ্যে মেহজাবিন চৌধুরী ছিলেন সবার বড়। পরিবারের বড় সন্তান হওয়ায় তিনি সবার থেকে একটু বেশিই আদরের ছিলেন। পরিবারের সদস্যরা তাকে আদর করে জেনিফার, জেনি ডাকত। মেহজাবিনের বাবা ছিলেন বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তা। সেই সুবাধে তারা বিভিন্ন দেশে ঘুরে বেড়িয়েছে। মেহজাবিনের ছোট দুই বোন মুকাদ্দাস মালাইকা চৌধুরী, কেনাত করিম চৌধুরী ও দুই ভাই আলী শান চৌধুরী, মুসদাক চৌধুরী রয়েছে। ভাই বোনদের সাথে তার সম্পর্ক খুবই ভাল। তারা একে অপরেকে শ্রদ্ধা ও ভালবাসে। তার ছোট ভাই বোনেরা তাকে নিয়ে গর্ব করে।

* পিতাঃ মহিউদ্দিন চৌধুরী
* পেশাঃ বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের কর্মকর্তা
* মাতাঃ গজলা চৌধুরী
* পেশাঃ গৃহিণী
* ছোট ভাই ১ঃ মুসদাক চৌধুরী
* ছোট ভাই ২ঃ আলী শান চৌধুরী
* ছোট বোন ১ঃ মুকাদ্দাস মালাইকা চৌধুরী
* ছোট বোন ২ঃ কেনাত করিম চৌধুরী

আরো পড়ুনঃ আফরান নিশোর জীবনী

মেহজাবিন চৌধুরীর অভিনয় ক্যারিয়ার

সংযুক্ত আরব আমিরাতে বড় হওয়া মেয়েটি অভিনেত্রী ও মডেল হওয়ার স্বপ্ন নিয়ে অংশগ্রহণ করেন লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার 2009 প্রতিযোগিতায়। কিন্তু কে জানত যে মেয়েটি ভালভাবে বাংলা বলতে পারত না সেই মেয়েটি সেই প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হবে। তার মডেল ও অভিনেত্রী হওয়ার পথটি খুলে দেয় লাক্স-চ্যানেল আই সুপারস্টার প্রতিযোগীতায় বিজয়ী হওয়ার মাধ্যমে। মেহজাবিন চৌধুরীর টিলিভিশন নাটকে অভিষেক হয় “তুমি থাকো সিন্ধুপারে” নাটকের মাধ্যমে। যেটিতে তার বিপরীতে অভিনয় করেন জনপ্রিয় অভিনেতা মাহফুজ আহমেদ। “তুমি থাকো সিন্ধুপারে” নাটকটি পরিচালনা করেন ইফতেখার আহমেদ ফাহমি। তার পর তিনি একে একে অনেক সুপারহিট নাটকে অভিনয় করেছেন।

টার্নিং পয়েন্ট “বড় ছেলে” ও “বুকের বা পাশে” নাটক

মেহজাবিন চৌধুরীর টিলিভিশন নাটকের টার্নিং পয়েন্ট ছিল “বড় ছেলে” ও “বুকের বা পাশে” নাটক দুটি। শুধু মেহজাবিন চৌধুরীর ক্যারিয়ারর সবচেয়ে সুপারহিট নাটক নয় এই দুটি নাটক। বাংলা নাটকের ইতিহাসের সবচেয়ে জনপ্রিয় নাটকগুলোর মধ্যে এই দুটি নাটক সবার শীর্ষে থাকবে। “বড় ছেলে” ও “বুকের বা পাশে” নাটক দুটি নির্মাণ করেন মেধাবী পরিচালক মিজানুর রহমান আরিয়ান। বড় ছেলে নাটকে মেহজাবিনের বিপরীতে অভিনয় করেন রোমান্টিক হিরো অপূর্ব এবং বুকের বা পাশে নাটকে তার বিপরীতে অভিনয় করেন কিং অফ ভার্সেটাইল অভিনেতা আফরান নিশো

পুরষ্কার ও সম্মাননা

মেহজাবিন চৌধুরীর কাজের সম্মাননা হিসেবে অনেক পুরস্কার পেয়েছে। বাংলাদেশের বেসরকারি ভাবে পুরস্কীকৃত করে যেসব প্রতিষ্ঠান তার সবগুলোতে তিনি পুরস্কার পেয়েছেন। আরটিভি স্টার অ্যাওয়ার্ড, মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কারে মত জনপ্রিয় পুরস্কার একাধিকবার পেয়েছেন। মেহেজাবিন মনে করে পুরস্কারের চেয়ে মানুষের ভালবাসা তার কাছে অনেক প্রিয়।

উল্লেখ্যযোগ্য পুরস্কার

১। ২০১৮ সালে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার বিজয়ী- নাটক বড় ছেলে
২। ২০১৯ সালে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার বিজয়ী- নাটক বুকের বা পাশে
৩। ২০২০ সালে মেরিল-প্রথম আলো পুরস্কার বিজয়ী- নাটক শেষটা সুন্দর
৪। ২০১৯ সালে আরটিভি স্টার অ্যাওয়ার্ড বিজয়ী- নাটক এই শহরে ভালোবাসা নেই

মেহজাবিন চৌধুরীর উল্লেখ্যযোগ্য নাটক

১। বুকের বা পাশে

২। বড় ছেলে

৩। শিল্পী

৪। ট্ম এন্ড জেরী

৫। বেস্ট ফেন্ড

৬। তুমি থাকো সিন্ধুপারে

৭। কট বিহাইন্ড

৮। দরজা খোলা ছিল

৯। প্লাস ফোর পয়েন্ট ফাইভ

১০। ভাইরাল গার্ল

১১। ইরিনা

১২। মন বদল

১৩। চাপাবাজ

১৪। ক্যান্ডি ক্রাশ

১৫। পূর্ণজন্ম

১৬। ব্যাচ ২৭

১৭। বন্ধু

১৮। জুই তোকে একটু ছুই

১৯। সানগ্লাস

২০। যদি কোনদিন

২১। পার্টনার

২২। আলো

২৩। শেষটা সুন্দর

২৪। পান সুপারি

২৫। ভুলতে পারি না

২৬। উইন অর লস

২৭। মহব্বত

২৮। চুমকি চলছে

২৯। ইম্পসিবল লাভ

৩০। ফান